• ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, শুক্রবার
  • 27 November 2020, Friday
Bhaichunger Songe Kichukhon ছবি: ইন্টারনেট

ভাইচুং -এর সঙ্গে কিছুক্ষণ

সন্দীপা বসু

Updated On: 21 Nov 2020 11:59 pm


ভারতীয়
ফুটবলের জীবন্ত কিংবদন্তী বলতে যা বোঝায় এক কথায় তাঁর নাম ভাইচুং ভুটিয়া বাঙালির কাছে আলাদা করে তাঁর পরিচয় করিয়ে দেওয়াটা নেহাতই বাহুল্য আইএসএল-এর শুরুতে তাঁকেই নিয়ে হাজির হলাম আপনাদের আড্ডায় তাহলে দেরি না করে আসুন শুরু করা যাক আড্ডা  

 

নিউz আওয়ার’-এর আড্ডায় আপনাকে স্বাগত ভাইচুং শুরু করব একটু অন্য প্রসঙ্গ দিয়ে এখন তো আপনি ফুটবল থেকে অনেক দূরে স্ত্রী মাধুরী এবং আপনার সন্তানদের সঙ্গে অনেক বেশি সময় কাটাতে পারছেনফ্যামিলি ম্যানবাইচুং সম্পর্কে যদি কিছু বলেন

 

আলাদা করে বলার কিছু নেই সময় খুব ভালো কাটছে আর এখন তো বাচ্চাদের স্কুল নেই সকলে বাড়িতে এনজয়িং লাইফ টু দ্য ফুলেস্ট

 

 

 

লকডাউন-এর সময়টা আপনার জীবনে কী প্রভাব ফেলেছে? এই কঠিন সময়টা কীভাবে কাটালেন আপনি?

 

মোস্টলি রিলাক্স করে বাড়িতে বসে ওয়ার্কআউট করেছি, রিলাক্স করেছি, আর কিছু সোশ্যাল ওয়ার্ক, যদি কখনো কোনো লোক অসুবিধেয় পড়েছে, কিছু দরকার, তো তাদের সেটুকু দিয়েছিএটুকুই বেসিক্যালি রিলাক্স অ্যান্ড লেড ব্যাক টাইম

 

 

 

বেশ কয়েক বছর আগে একটি সর্বভারতীয় চ্যানেলের রিয়্যালিটি শো-তে অংশগ্রহণ করতে দেখা গিয়েছিল আপনাকে তারপর আর তেমন কোনো অনুষ্ঠানে আপনাকে দেখা যায়নি কেন?

 

আমার জন্য ওই রিয়্যালিটি শো ফার্স্ট ছিল আর ওটাই লাস্ট আমার মনে হয় না ওটা আমার জন্য একটা অভিজ্ঞতার জন্য করেছিলাম সেদিক থেকে আমার অভিজ্ঞতা খুবই ভালো কিন্তু আমি ঠিক করেছি, আর কোনো রিয়্যালিটি শো নয় এটা আমার ইন্টারেস্টের জায়গাই নয়

 

 

 

এবার একটু ফুটবলে ফিরব আমরা একটা সময় আপনার এবং রেনেডি সিংয়ের উদ্যোগে এফপিএ তৈরি হয়েছিল এই সংস্থা ফুটবলারদের পাশে দাঁড়াতে কতটা সক্ষম হয়েছে? প্রত্যন্ত অঞ্চলের অনেক প্রতিভাবান ফুটবলার এই অতিমারির সময়ে ফুটবল ছেড়ে বিভিন্ন বিকল্প পেশা বেছে নিয়েছে আপনারা কি এদের জন্য কিছু করার পরিকল্পনা করেছেন?

 

শুরু থেকেই খেলোয়াড়দের স্বার্থে অনেক অ্যাক্টিভিটি করেছে এফপিএ অনেক ইনিশিয়েটিভ তখনও নিয়েছে, পরেও নিয়েছে তাছাড়া খেলোয়াড়দের অনেক সমস্যা, ইনজুরি, ক্লাবের সঙ্গে কন্ট্র্যাক্ট---- এমন অনেক ব্যাপারে ক্লাবের সঙ্গে কথা বলা বা অন্য যে কোনো ভাবে সেই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেছে সব সমস্যা পুরোপুরি মিটে না গেলেও কম হয়েছে অনেকটাই 

তবে অনেকদিন হল এফপিএ হয়েছে, এই মুহূর্তে তাদের কার্যকলাপের সঙ্গে আমি একেবারেই জড়িত নই বর্তমানের সব খবর আমি জানিও না তবে আমি এটুকু শিওর যে খেলোয়াড়দের ওয়েলফেয়ারে এফপিএ তাদের সঙ্গে আছে প্রয়োজনে সব রকম লড়াইতেও সঙ্গে থাকবে বলেই আমার আশা 

 



বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশের যুব সমাজের একটা বড় অংশ নানা কারণে হতাশা বা ডিপ্রেশনে ডুবে যাচ্ছে অনেকেই আত্মহননের পথ বেছে নিচ্ছে সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে একজন ইয়ুথ আইকন হিসেবে প্রতিকূলতাকে জয় করে এগিয়ে যেতে যুবসমাজের প্রতি আপনি কী বার্তা দিতে চাইবেন?

 

আমি তো এটাই বলব সবাইকে যে স্পোর্টস খুব জরুরি খেলাধুলোর মধ্যে থাকো এরকম ডিফিকাল্ট সিচুয়েশন- স্পোর্টস তো আরো জরুরি এই সব হতাশা ডিপ্রেশন কিছুই কাছে আসতে পারবে না স্পোর্টস জিত বা হার, ভালো ফল খারাপ ফল দুটোকেই ঠিকভাবে নিতে শেখায় ডিফিকাল্ট সিচুয়েশনে ওটা খুব হেল্প করে খেলোয়াড়রা মানসিকভাবে অনেক স্ট্রং হয় তাই আমার মনে হয়, স্পোর্টস একমাত্র উপায় ডিপ্রেশন কাটিয়ে ওঠার

 

 

 

খেলোয়াড়দের মানসিকতার প্রসঙ্গে মনে হল, এই যে আইএসএল একটা ফাঁকা স্টেডিয়ামএ হচ্ছে, এটা একজন খেলোয়াড়ের মনে এফেক্ট কী ফেলবে? দর্শক ভর্তি গ্যালারির সেই উত্তেজনা কোথায়? খেলোয়াড়রা একটু ডি-মোটিভেটেড হয়ে যাবে না?

 

এখন তো সিচুয়েশন ওরকমই খেলোয়াড়দের বিভিন্ন সিচুয়েশনে মানিয়ে নিতেই হবে নানারকম সিচুয়েশন আসবে, নিজেকে সেই অনুযায়ী অ্যাডজাস্ট করতে হবে যদি মানিয়ে নিতে না পারে তাহলে আমি মনে করি তারা নিজেরাও সাকসেসফুল হবে না 

তবে এরকম আগে অনেক হয়েছে প্যানডেমিক সিচুয়েশনের আগেও প্লেয়াররা খালি স্টেডিয়ামে অনেক খেলেছে তাই আমার মনে হয় আজকের এই ডিফিকাল্ট সিচুয়েশনে কমপ্লেন না করে প্লেয়ারদের মানিয়ে নেওয়া জরুরি অবশ্যই দর্শক ভর্তি স্টেডিয়ামে খেলার আনন্দ আলাদা, সকলেই তাইই চাইবে কিন্তু সিচুয়েশন বুঝে নিজেকে সেভাবে মানিয়ে নেওয়া অনেক বেশি জরুরি 


 


আইএসএল খেলতে না পারার জন্য কি আপনার আফসোস হয়? এরকম কি কখনো মনে হয়েছে আপনাদের সময় যদি এরকম ওয়েল অর্গানাইজড, গ্ল্যামারাস টুর্নামেন্ট হত, তাহলে হয়তো আপনার কেরিয়ার গ্রাফটা অন্যরকম হতে পারত?

 

না, মনে হয়নি সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অনেক নতুন জিনিস আসবে আমাদের সেভাবেই এগোতে হবে আমার সময় আই লিগ ছিল আর আমি খুব খুশি সেখানে খেলে আমার মনে হয় আমার সময় এটা কেন হয়নি, ওটা কেন ছিল না---- এসব নিয়ে রিগ্রেট করার কোনো মানে হয় না যেটা আছে, সেটাকেই নিয়ে সব থেকে ভালোটা দিতে হবে আজ থেকে ১০-২০ বছর পর হয়তো আরো বড় আরো ভালো কিছু আসবে তখন যদি আজকের প্লেয়াররা ভাবে আমার সময় তো শুধু আইএসএল ছিল, এই ছিল না সেটা হয় না আমার সময় যা ছিল, সেখানে আমি নিজের সেরাটা দিয়েছি এবং আমি খুশি অবশ্যই আগামীতে আরো ভালো কিছু আসবে, কিন্তু সেটা নিয়ে রিগ্রেট করার কোনো মানে হয় না

 

 

 

বছর কলকাতার দুই প্রধান দল আইএসএল খেলছে একই ভাবে আগামী দিনে হয়তো মহামেডান স্পোর্টিং-কেও আমরা আইএসএল খেলতে দেখবো আইএসএল নিয়ে উন্মাদনা এখন তুঙ্গে কিন্তু আইএসএল বাংলা তথা ভারতীয় ফুটবলের কতটা উন্নতি করতে পারে বলে আপনি মনে করেন? ব্যাপারে আপনি নিজে কতটা আশাবাদী?

 

অবশ্যই ভালো হবে আমার মনে হয় খেলোয়াড়রা অনেক বেশি মোটিভেটেড ফিল করবে প্রফেশনাল ফুটবল নতুন খেলোয়াড়দের একটা ভালো জীবন দিতে পারবে সেরা খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলা, সেরা কোচদের কাছে ট্রেনিং, উন্নত মাঠ, ভালো খেলার পরিবেশ এই ব্যাপারগুলো ভালো খেলার ব্যাপারে হেল্প করে এগুলো থেকে বাংলার তো বটেই ভারতীয় ফুটবলেরও উন্নতি হবে

 

  

 

বছর প্রবাদপ্রতিম খেলোয়াড় তথা দেশের অন্যতম সফল কোচ পি. কে. ব্যানার্জী প্রয়াত হয়েছেন আপনার জীবনে কোচ পি. কে. ব্যানার্জীর ভূমিকা ঠিক কতটা? একই সঙ্গে এটাও জানতে চাইব আপনার সময়কার কোচেরা অর্থাৎ পি. কে., সৈয়দ নঈমউদ্দিন, সুভাষ ভৌমিক, আর্মান্দো কোলাসো, সুখবিন্দর সিং, সি. কে. চাতুনি---- এঁদের মধ্যে আপনার মতে সেরা কোচ কে ছিলেন?

 

পিকেদার মৃত্যু বিরাট ক্ষতি খুবই বেদনাদায়ক শুধু আমার জন্য নয়, ভারতীয় ফুটবলের ক্ষেত্রেই বড় দুঃখের ঘটনা ভারতীয় ফুটবলে ওঁর অবদান, খেলোয়াড় হিসেবেও আবার কোচ হিসেবেও---– এটা একটা অপূরণীয় ক্ষতি 

আর ব্যক্তিগতভাবে বলতে গেলে সব কোচের ধরন আলাদা আমার জীবনে প্রতিটি কোচের ভূমিকা রয়েছে একজনকে বেছে নিতে বললে কঠিন সকলেই ভালো সকলেই নিজের মতো করে আমাকে খুবই সাহায্য করেছেন

 

 

 

জীবন্ত কিংবদন্তী ভাইচুংকে ভবিষ্যতের ভারতীয় ফুটবল কীভাবে পেতে পারে? কোচ নাকি অ্যাডমিনিস্ট্রেটর? নাকি ফুটবল ছেড়ে রাজনীতিতেই বেশি করে মনোনিবেশ করবেন?

 

বলা কঠিন এই মুহূর্তে আমি ভাইচুং ভুটিয়া ফুটবল স্কুল নিয়ে খুবই খুশি এটা ভারতের সবথেকে বড় গ্রাসরুট ফুটবল স্কুলগুলির মধ্যে একটি ইতিমধ্যেই জন সেখান থেকে ভারতীয় কিডস গ্রুপে খেলছে এছাড়া সিকিম ফুটবল ক্লাব আছে এই মুহূর্তে আমার সমস্ত ফোকাস এইগুলোতেই