• ১৩ কার্তিক ১৪২৭, বৃহস্পতিবার
  • 29 October 2020, Thursday
পুজোয় সরকারি অনুদান নিয়ে প্রশ্ন তুলল হাইকোর্ট

পুজোয় সরকারি অনুদান নিয়ে প্রশ্ন তুলল হাইকোর্ট

ওয়েব ডেস্ক প্রতিনিধি

Updated On: 15 Oct 2020 05:10 pm


দুর্গাপূজার জন্য ক্লাবগুলিকে অনুদান দেওয়ার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার আজ তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কলকাতা হাইকোর্ট৷ করোনা অতিমারির আবহে বারোয়ারি দূর্গাপুজা বন্ধ করা ও সরকারের ক্লাবগুলিকে পুজো উপলক্ষে অনুদান দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কলকাতা হাইকোর্টে এক জনস্বার্থ মামলা করা হয়। আজ ছিল সেই মামলার শুনানি। সেই সময়ই সরকারি আইনজীবির কাছে বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ জানতে চায় শুধু কি দূর্গাপুজো উপলক্ষেই দেওয়া হচ্ছে এই অনুদান নাকি অন্যান্য ধর্মীয় অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রেও দেওয়া হয়ে থাকে। ঈদের সময়ও কি এই অনুদান দিয়েছিল সরকার। যদি তা না দিয়ে থাকে তাহলে এমন ভেদাভেদ কেন সেই প্রশ্নও আজ তুলেছে হাইকোর্ট। সরকারের কাছে টাকা থাকলেই যথেচ্ছভাবে তা খরচ করা যায় না, হাইকোর্টের বেঞ্চ আজ এই মন্তব্যও করে। জবাবে সরকারের আইনজীবি বলেন করোনা সংক্রমণের কথা মাথায় রেখে ক্লাবগুলিকে মাস্ক ও স্যানিটাইজার কেনার জন্য এই অনুদান দিচ্ছে রাজ্য সরকার। এর উত্তরে বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেঞ্চ বলে মাস্ক ও স্যানিটাইজার তো ক্লাবগুলিকে কিনেই দিতে পারত রাজ্য সরকার। পুজোর সময় ভিড় সামলানোর কাজ মূলত পুলিশকেই করতে হয়। সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে হাইকোর্টের বেঞ্চের পর্যবেক্ষণ, সব কাজ যদি পুলিশই করে তাহলে ক্লাবিগুলিকে কেন অনুদান দেওয়া হবে? এরই পাশাপাশি হাইকোর্টের প্রশ্ন এই অনুদানের সিদ্ধান্ত কি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রনোদিত নয়? পুজোর অনুমতি দেওয়ার প্রসঙ্গেও আজ হাইকোর্টে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় রাজ্য সরকারকে। করোনা আবহে যেখানে এখনো স্কুল কলেজ খোলার অনুমতি দিতে পারছে না রাজ্য সরকার, সেখানে পুজোর অনুমতি কীভাবে দেওয়া হল সেই প্রশ্ন আজ তুলেছে কলকাতা হাইকোর্টের বেঞ্চ। পাশাপাশি ভিড় ও সংক্রমণ এড়াতে রাজ্য সরকার কী ধরণের পরিকল্পনা নিয়েছে, তার ব্লু-প্রিন্ট কী, তাও জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট। রাজ্যের অ্যাশভোকেট জেনারেল কিশোর দত্ত ও মামলাকারী সিটু নেতা সৌরভ দত্তের পক্ষের আইনজীবি বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যকে এই মামলা সংক্রান্ত সমস্ত বিষয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে শুক্রবার আদালতকে জানানোর উপদেশ দিয়েছে হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ।